1. azqlgjgesKt@gmail.com : Stabrovpealk :
  2. test47018929@email.imailfree.cc : test47018929 :
  3. multicare.net@gmail.com : সংবাদ শরীয়তপুর :
শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৯:৩৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
বৃষ্টির জন্য ডামুড্যায় বিশেষ নামাজ আদায় শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জে জমকালো আয়োজনে উদ্বোধন হলো বিজয় মঞ্চ  ককটেলের আঘাতে যুবক হ*ত্যা*র অভিযোগ, বিচারের দাবিতে পরিবারের সংবাদ সম্মেলন কবি হাসনা হেনা’র কবিতা “হতে পারবো বীর” জীবনতরী মুক্ত স্কাউট গ্রুপের স্কাউট ওন ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত বঙ্গবন্ধুর জন্ম হয়েছিলে বলেই বাংলাদেশ স্বাধীন সার্বভৌম: এনামুল হক শামীম শরীয়তপুরে আতাউর রহমান খান ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের উদ্যোগে রিকশা ও ভ্যান বিতরণ কে এই ইঞ্জিনিয়ার ওয়াছেল কবির গুলফাম বকাউল সরকার গ্রামকে শহরে রূপান্তরের কাজ করছেন : এনামুল হক শামীম বিঝারী উপসী তারাপ্রসন্ন উচ্চ বিদ্যালয় দরিদ্র  ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের বৃত্তিপ্রদান

নদী ভাঙ্গন এলাকা এখন মিনি কক্সবাজার

  • প্রকাশিত: রবিবার, ১২ নভেম্বর, ২০২৩
  • ১৩৬ বার পড়া হয়েছে
বেশি দিন আগের কথা নয়। শরীয়তপুরের নড়িয়া পদ্মা পাড়ের মানুষের ঘুম হতো না এই দুশ্চিন্তায় । সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে হয়তো আমাদের ভিটেমাটি অক্ষত পাবনা। পদ্মায় সব নিয়ে যাবে। এমন সংশয় নিয়ে কাটানো পদ্মা পাড়ের মানুষের কাছে জয় বাংলা এভিনিউ যেন একটি স্বপ্নের মতো। সেই দুশ্চিন্তাগ্রস্ত পদ্মা পাড় কে কেন্দ্র করেই গড়ে উঠেছে আজ বিভিন্ন ব্যবসা-বাণিজ্য প্রতিষ্ঠান। সৃষ্টি হয়েছে নতুন নতুন কর্মসংস্থান। হয়েছে পর্যটন কেন্দ্র।
স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, পদ্মা নদী শরীয়তপুরের জাজিরা, নড়িয়া ও ভেদরগঞ্জ উপজেলার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। নদীটি পূর্ব দিক থেকে পশ্চিমে প্রবাহিত হয়েছে, যা চাঁদপুরে গিয়ে মেঘনায় মিশেছে। এখন প্রতিদিন শেষ বিকেলে সূর্যাস্তের অপূর্ব দৃশ্য উপভোগ করতে হাজারো মানুষ নড়িয়ার পদ্মাপাড়ে জড়ো হন। অনেকে বলেন এটা মিনি কক্সবাজার।
পশ্চিমের আকাশে সূর্য যখন হেলে পড়ে, তখন লাল আভা ছড়িয়ে পড়ে পদ্মার বুকজুড়ে। এরপর ধীরে ধীরে দিগন্তে মিশে যায় লাল সূর্যটি। অপলক সৌন্দর্যমন্ডিত এমন দৃশ্য দেখতে প্রতিদিন পদ্মার পাড়ে ছুটে আসছে হাজারো মানুষ।
শত বছরের পদ্মার ভাঙ্গন রোধ করে ২০১৯ সাল থেকে শরীয়তপুরের নড়িয়া-জাজিরা পদ্মা নদীর ডান তীর রক্ষা বাঁধ প্রকল্পের জন্য পাল্টে গেছে এখানকার চিত্র।
ঈদ উৎসবসহ নানা অবসরে শরীয়তপুরের পদ্মা পারে জয় বাংলা এভিনিউতে উপচে পড়া ভিড় পরে ভ্রমণ পিপাসুদের। এ যেন এক মিনি কক্সবাজার। অবসরে কিছুটা বিনোদন পেতে পরিবার পরিজনসহ পদ্মার পাড়ে এসে পানি স্পর্শ করে আনন্দ উপভোগ করে অনেকেই। পাশাপাশি মিনি চাইনিজ রেস্টুরেন্ট এর কারণে অনেকের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থাও হয়েছে এখান
নড়িয়ার মুলফৎগঞ্জ বাজার থেকে সুরেশ্বর লঞ্চঘাট পর্যন্ত চার কিলোমিটার এই ওয়াকওয়ের নামকরণ করা হয়েছে জয় বাংলা এভিনিউ। ওয়াকওয়ের পাশ দিয়ে ঝাউগাছসহ বিভিন্ন গাছ লাগানো হয়েছে। দর্শনার্থীদের বসার জন্য বিভিন্ন স্থানে বেঞ্চ নির্মাণ করা হয়েছে। নদীতে নামার জন্য প্রতি ৩০০ মিটার পরপর সিঁড়ি নির্মাণ করা হয়েছে।
নড়িয়া উপজেলা প্রশাসন ও পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানায়, ২০১৫ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত নড়িয়ার পদ্মার তীরবর্তী তিনটি ইউনিয়ন ও নড়িয়া পৌরসভার কিছু এলাকায় প্রবল নদীভাঙন ছিল। ওই সময়ে ভাঙনে অন্তত ২০ হাজার পরিবার গৃহহীন হয়; ৩টি বাজারের অন্তত ৫ শতাধিক ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান পদ্মায় বিলীন হয়। সরকারি-বেসরকারি বহু প্রতিষ্ঠান ও স্থাপনা পদ্মায় বিলীন হয়ে যায়। নড়িয়ার ভাঙন ঠেকাতে ২০১৯ সাল থেকে ‘নড়িয়া-জাজিরা পদ্মা নদীর ডান তীর রক্ষা বাঁধ’ প্রকল্পের কাজ শুরু হয়। এই প্রকল্পের আওতায় এক হাজার ৪১৭ কোটি টাকা ব্যয়ে ১০ দশমিক ২ কিলোমিটার নদীর তীর রক্ষা ও ১১ দশমিক ৮ কিলোমিটার নদীর চর খনন করা হয়।
দর্শনার্থীরা জানান এখানকার নান্দনিক সৌন্দর্য উপভোগ করতে পর্যটকদের ভীর বাড়িয়ে দিয়েছে কয়েকগুণ প্রায় প্রতিদিনই শরীয়তপুর সহ আশপাশের জেলার অনেক মানুষ  এই মিনি কক্সবাজারের সূর্যাস্ত উপভোগ করতে আসছে।
ঢাকাতে থাকেন আরিফ হোসেন তিনি তার নানাবাড়ি নড়িয়াতে বেড়াতে এসে ঘুরতে এসেছেন নড়িয়ার জয় বাংলা এভিনিউতে। তিনি বলেন, ছোটবেলা শুনেছি নানাদের বাড়িঘর ভেঙে পদ্মায় নিয়ে যেত। এখন এসে সেই পদ্মার পাড় এরকম দৃশ্য দেখতে পেয়ে খুবই ভালো লাগে। আমি নানু বাড়িতে যখনই আসি। তখন এখানে ঘুরতে আসি।শরীয়তপুর শহর থেকে বন্ধুদের সাথে ঘুরতে আসা নিজামুদ্দিন  বলেন, আমাদের শরীয়তপুরে তেমন কোনো ঘোড়ার মত পর্যটক কেন্দ্র নেই। তবে পদ্মার পাড়ে জয় বাংলা এভিনিউর এই মনোরম দৃশ্য যেন মিনি কক্সবাজার। এখানে অনেক লোক আসে তাই সময় পেলে এখানে আসি ঘুরে যাই।
মাদারীপুর থেকে আসা  ইকবাল হোসেন লাভলু  বলেন, শরীয়তপুরের কিছু বন্ধু আছে যারা আমাদের সাথে মাদারীপুরে নাজিমুদ্দিন কলেজে পড়ে। ওরা প্রতিনিয়তই আমাদেরকে নড়িয়ার এই সৌন্দর্য দেখার জন্য আমন্ত্রণ জানায়। তাই আজ এসেছি। যেমনটা বলেছে তেমনটাই সুন্দর।এ বিষয়ে শরীয়তপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী এস এম আহসান হাবীব বলেন, ভাঙ্গন বন্ধ হওয়ায় এবং পদ্মা পার আকর্ষণীয় পর্যটক কেন্দ্রের রূপ নেয়ায় এ অঞ্চলের অর্থনীতিতে বিশেষ ভূমিকা রাখবে সফল এই প্রকল্প। এবং শরীয়তপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডে  সোনার বাংলা এভিনিউ সখিপুর কাজ করে চলছ আমরা খুব শীঘ্রই  সোনার বাংলা এভিনিউ সখিপুর কাজ শেষ করবো,

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

পুরাতন সংবাদ পড়ুন

বৃহ শুক্র শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট